Published: November 16, 2019

সৈয়দপুর ফাইলেরিয়া হাসপাতালকে দখলদারের হাত থেকে উদ্ধারে সকলের সহযোগিতা চেয়ে চিঠি


মো.জাহিদুল হাসান জাহিদ-অসহযোগিতা আর রশি টানাটানির কবলে পড়ে বাংলাদেশের একমাত্র নীলফামারীর সৈয়দপুর ফাইলেরিয়া হাসপাতালটির চিকিৎসা সেবা মুখ থুবড়ে পড়েছে।নানা টানাপোড়েনের কারণে চিকিৎসা সেবা নিতে আশা সাধারণ মানুষ চিকিৎসা হতে বঞ্ছিত হচ্ছে।
জানাযায়, ইনস্টিটিউট অব এলার্জি এন্ড ক্লিনিক্যাল ইমুনোলজী অব বাংলাদেশ(আইএসিআইবি)সমাজসেবা অধিদপ্তর ও এনজিও ব্যুরো কর্তৃক নিবন্ধনকৃত একটি অলাভজনক, অরাজনৈতিক, বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবামূলক প্রতিষ্ঠান।১৯৯৫সালে এই প্রতিষ্ঠানটি প্রতিষ্ঠিত হয়।
এই সংস্হাটি বাংলাদেশে ফাইলেরিয়া, জলাতঙ্ক, থ্যালাসেমিয়া সহ বিবিধ অবহেলিত রোগনিয়ন্ত্রণ ও চিকিৎসায় কাজ করে।
নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর ফাইলেরিয়া হাসপাতালটি আইএসিআইবি এর একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান ।জাপান দূতাবাসের অর্থায়নে ২০০২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়।
ফাইলেরিয়া হাসপাতালটি০৭/০৩/২০১২ ইং তারিখ থেকে অবৈধ দখলদারের অধীনে রয়েছে।বিধায় উহার কার্যক্রম বন্ধ আছে।
হাসপাতালটিকে অবৈধ দখলদারের কবল থেকে উদ্ধারের জন্য ইতিমধ্যে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, সমাজকল্যাণ মন্ত্রনালয়, ডিজি র‍্যাব,স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, নীলফামারী জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, সিভিল সার্জন, রংপুর বিভাগীয় পরিচালক(স্বাস্থ্য),বিভাগীয় কমিশনার সংশ্লিষ্ট সকলকে আইএসিআইবি ও জাপান দুতাবাস থেকে একাধিকবার অবহিত করা হয়।ফাইলেরিয়া হাসপাতালটি সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য বাংলাদেশ প্যারামেডিক্যাল ডক্টরস এসোসিয়েশন((বিপিডিএ) কে দায়িত্ব প্রদান করা হয়।বিপিডিএ এর মহাসচিব রফিকুল ইসলাম তুহিন এব্যাপারে প্রযোজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।লিখিত অবগতিপত্রটিতে উল্লেখ করা হয়েছে।
অবৈধ দখলদারের হাত থেকে উদ্ধার পূর্বক বিপিডিএ কর্তৃক সৈয়দপুরের ফাইলেরিয়া হাসপাতালটি সুষ্ঠু ভাবে পরিচালনার ব্যাপারে সার্বিক সহযোগিতার জন্য অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দিয়েছেন।আইএসিআইবি চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডাঃমোয়াজ্জেম হোসেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *