Published: October 31, 2019

সৈয়দপুরে রাস্তাটি মেরামত কবে হবে কেউ জানেনা

ডেস্ক রিপোর্ট-নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড নিয়ামতপুর এলাকার একটি ইটের সলিং’র রাস্তা মেরামতের অভাবে যাতায়াতের জন্য অযোগ্য হয়ে পড়েছে।এই নিয়ে এলাকাবাসীর অভিযোগের শেষ নেই।
এলাকাবাসী দুঃখ ও ক্ষোভ নিয়ে বলেন,সৈয়দপুর পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ড উত্তর নিয়ামতপুর জুম্মাপাড়া গাঠুর মোড় হইতে দেওয়ানীপাড়া পর্যন্ত রাস্তার বেহাল দশা।এই দুর্দশা দেখার কেউ নাই।এই এলাকার কারো দরকার পড়েনা। শুধু ভোটের জন্য তাহারা ভুল করে আসেন।আর খোদার কসম, আল্লাহর কসম ইত্যাদি বলাসহ কান্নাকাটি করে প্রতিশ্রুতি আর ?টেন্ডারের দোহাই দিয়া চলে যান। আর সহজ সরল পাজি এলাকাবাসী বারবার ভুলে যেয়ে তাহাদের ভোট দেই। এইটা অবশ্য তাদের করুনা আর দয়া।কিন্তু এই মানুষদের সহজ সরল ভালোবাসাকে বারবার তুচ্ছতাচ্ছিল্য করে শুধু অবহেলা অবঙ্গা করে যায়। শুধু একটি পাকা রাস্তার অভাবে এই এলাকার মানুষের ভাগ্য উন্নয়ন তরান্বিত হয় না। দিনের পরদিন পৌর কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেও কোনো ফল হয় না।
এলাকার যুব সমাজ ওই রাস্তার জন্য ২০১৭ সালে পৌর কর্তৃপক্ষের বরাবর নির্মাণের জন্য লিখিত আবেদন করেন।এর প্রতিউত্তরে পৌর কর্তৃপক্ষ টেন্ডার হয়েছে মর্মে জানান। এবং দ্রুত কাজ শুরু হবে পৌর কর্তৃপক্ষ এই আশ্বাস দেন।
কয়েক মাস অতিবাহিত হয়েগেছে।কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। অথচ শহরে অনেক এলাকায় পাকা রাস্তা তুলে নতুন রাস্তা,ড্রেন করা হয়েছে। অথচ তাদের প্রায় ১.৫/২ কিলোমিটার পাকা রাস্তা তৈরিতে উদাসীন পৌর কর্তৃপক্ষ।ওই এলাকায় রাস্তার অভাবে শিল্প কারখানা তৈরি হচ্ছে না। অনেক উদ্যোক্তাই রাস্তার অভাবে শিল্পকারখানা গড়ে তুলতে পারছেনা।এলাকার মানুষ আধুনিক সেবা সহ কর্মসংস্থানের সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এলাকার মানুষ জরুরী এ্যম্বোলেন্স সেবা ও আগুন লাগার মতো কোনো দূর্ঘটনা ঘটনা ঘটলে ফায়ারসার্ভিসও আসতে পারেনা।এমনকি রিকশা ভ্যানও সুবিধা ভালো ভাবে যাতায়াত করতে পারেনা। পানি নিষ্কাশনের নেই সুব্যবস্থা। নেই পর্যাপ্ত আধুনিক নাগরিক সুবিধা।আছে শুধু ভোট আর হোল্ডিং ট্যাক্স প্রদানের বাধ্যবাধকতা।ওই এলাকার সার্বিক অবস্হার কথা জানান তারা।
রাস্তাটি পাকা করনের কাজ পৌর কর্তৃপক্ষ অতি দ্রুত আরম্ভ করবে এই প্রত্যাশা এলাকাবাসীর।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *