Published: March 8, 2020

সৈয়দপুরে মাঠের ক্রিকেট পিচ খুড়ে ফেলা কিসের সংকেত


জাহিদুল হাসান জাহিদ:বর্তমান সরকার ক্রীড়াঙ্গনের সাথে জড়িতদের সহযোগিতা উৎসাহ দিচ্ছে এবং ছাত্র ও যুব সমাজ পড়ালেখার পাশাপাশি খেলাধুলা করতে পারে।এইজন্য নানা ধরনের কর্মসূচি হাতে নিয়েছে সরকার। সুস্থ ভালো থাকতে হলে খেলাধুলার বিকল্প নেই।

এইজন্য দরকার খেলাধুলার মাঠ।আর এই মাঠ নিয়ে যদি চলে অপরাজনীতি।তা হলে তো যুব সমাজ আরো নেশাগ্রস্ত হয়ে পড়বে।

নীলফামারীর সৈয়দপুরে খেলার মাঠ নিয়ে চক্রান্ত শুরু হয়েছে।শহরে ক্রিকেট ফুটবল খেলার জন্য উপযোগী ভাল মানের তেমন মাঠ নেই। এক দুইটি মাঠ আছে,তাও আবার খেলোয়াড়দের অনুশীলনের জন্য নানা সমস্যায় জর্জরিত।স্হানীয় ভাবে পাড়া মহল্লায় ছোট ছোট মাঠ রয়েছে।তা আবার নানা কৌশলে দখলের পায়তারা চলছে।

সৈয়দপুরে উল্লেখযোগ্য কয়েকটি খেলার মাঠ রয়েছে।যেমন-শেখ রাসেল মিনি ষ্টেডিয়াম, রেলওয়ে মাঠ,পাইলট বালক উচ্চ বিদ্যালয়(বাংলা হাই স্কুল)মাঠ,ফাইফ ষ্টার মাঠ ইত্যাদি।
এইসব মাঠে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা রয়েছে।তারপরও নানা সমস্যা উপেক্ষা করে নিয়মিত ক্রিকেট, ফুটবল অনুশীলনে করে শহরের ছাত্র, যুবকরা।সাম্প্রতিক সৈয়দপুরে খেলোয়াড়দের জন্য শনিরসংকেত শুরু হয়েছে।

জানাযায়, সৈয়দপুর রেলওয়ে মাঠের ক্রিকেট খেলার পিচটি খুড়ে ফেলা হয়েছে।

এব্যাপারে রেলওয়ে মাঠে দায়িত্বে থাকা একজন নাম গোপন রেখে বলেন,ফুটবল টুর্নামেন্ট হবে, বুট পরে খেলা সমস্যা হয়।এই জন্য পিচ খুড়া হয়েছে।

এব্যাপারে শহরের সাবেক খেলোয়াড় ও সচেতন ব্যক্তিগন জানান,এই পিচ প্রথম তৎকালীন ডিইই মরহুম সিরাজ সাহেবের আমলে এবং তৎকালীন থানা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক নেছার আহমেদ সার্বিক সহযোগিতায় করা হয়। তারপরও অনেক ফুটবল টুর্নামেন্ট বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট অতি সম্প্রতি সামসুল হক ফুটবল টুর্নামেন্ট হয়েছে।

সময়ের প্রয়োজনে পিচও অনেকববার সংস্কার, পরিবর্ধন, পরিবর্তন হয়েছে। কিন্তু এভাবে খুঁড়ে ফেলা হয়নি।রেলওয়ে জায়গা হয়েছে তো কি হয়েছে।কেউতো দখল করে বিক্রি করে দেয়নি। এই মাঠে বাংলার ফুটবল জাদুকর সামাদ, কেরেসম্যাটিক গোলরক্ষক ইকবাল সহ অনেক নামকরা খেলোয়াড়রা এখানে খেলে গেছেন। তখন মাঠ রেলের না পাবলিকের এ প্রশ্ন উঠেনি। আজ উঠছে কেন ? নব্য উপদেষ্টাদের কথা শুনে কর্তৃপক্ষ এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
এই নব্যরা পিছনের ইতিহাস জানে না। অনেকে এখনও বেচেঁ আছে যারা এই মাঠে খেলেই বড় হয়েছি।

কর্তৃপক্ষকে কারো ব্যক্তিগত কথায় নয়, সার্বিক বিষয়ে খোজ খবর নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার অনুরোধ জানান তারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *